মুলার উপকারিতা – Jana Joruri

মুলার উপকারিতা: শীতের সবজিতে ভরে উঠেছে বাজার। এর মধ্যে অন্যতম হলো মুলা। কিন্তু অনেকেই মুলার নাম শুনেই বিরক্ত হন।আমাদের মধ্যেই অনেকেই এই সবজি খেতে চান না। কিন্তু জানেন কি মুলা শরীরের জন্য ভীষণ ভাবে উপকারী।বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা মেটাতে শীতের এই সবিজর জুড়ি মেলা ভার। তাই শীতের সময় নিয়মিত ডায়েটে মুলা রাখুন।এবার জেনে নেওয়া যাক মুলার যত উপকারিতা-

মুলার পুষ্টিগুণ:

মুলায় রয়েছে প্রচুর পুষ্টিগুণ। খাবার উপযোগী ১০০ গ্রাম মুলাপাতায় আছে

আমিষ ১.৭ গ্রাম

শ্বেতসার ২.৫ গ্রাম

চর্বি ১.০০ গ্রাম

খনিজ লবণ ০.৫৭ গ্রাম

ভিটামিন সি ১৪৮ মিলিগ্রাম

ভিটামিন এ বা ক্যারোটিন ৯ হাজার ৭০০ মাইক্রোম

 

বি-২০.১০ মিলিগ্রাম

ভিটামিন বি-১০.০০৪ মিলিগ্রাম

ক্যালসিয়াম ৩০ মিলিগ্রাম

লৌহ ৩.৬ মিলিগ্রাম

খাদ্যশক্তি ৪০ মিলিগ্রাম

পটাসিয়াম ১২০ মিলিগ্রাম।

মুলার উপকারিতা:

মায়ের দুধ বৃদ্ধি:

শিশুকে যে মায়েরা দুগ্ধপান করান তারা মুলা খেতে পারেন। নিয়মিত মুলা খাওয়ার অভ্যাস থাকলে শিশু পর্যাপ্ত দুধ পাবে।

কোষ্টকাঠিন্য দূর:

মুলার হজমকারী ক্ষমতা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। পাইলস রোগে আরাম হয়। পাইলসের কারণে রক্ত পড়া পর্যন্ত বন্ধ হয়।

আরো পড়ুন: শিউলি পাতার উপকারিতা

রক্ত পরিষ্কারক:

মুলা রক্ত পরিষ্কারক হিসেবে কাজ করে। লিভার এবং পাকস্থলীর সমস্ত দুষণ এবং বর্জ্য পরিস্কার করে থাকে। মুলা কিডনি রোগসহ মূত্রনালির অন্যান্য রোগে উপকারী।

হজমে উপকার ও ক্ষুধা বৃদ্ধি:

কাঁচা মুলা খাওয়ার অভ্যাস থাকলে হজম হয় দ্রুত এবং রুচি বাড়ে। কচি মুলার সালাদ ক্ষুধা বৃদ্ধি করতে সহায়ক।

রোগীর পথ্য:

জ্বরে ও বিভিন্ন রোগে ভুগলে বা মুখের রুচি নষ্ট হয়ে গেলে মুলা কুচি করে কেটে চিবিয়ে খেলে উপকার পাবেন। জ্বর কমবে, মুখের রুচিও বাড়বে। পেটে ব্যথা বা গ্যাসের সমস্যা হলে মুলার রসের সঙ্গে পাতিলেবুর রস মিশিয়ে খেলে ভালো ফল পাবেন।

ত্বকের যত্নে মুলার উপকারিতা :

ত্বক পরিচর্যায়ও মুলা ব্যবহৃত হয়। এটি ভালো অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে। কাঁচা মুলার পাতলা টুকরো ত্বকে লাগিয়ে রাখলে ব্রণ নিরাময় হয়। এছাড়া কাঁচা মুলা প্যাক এবং ক্লিনজার হিসেবেও দারুন উপকারী।

আরো পড়ুন: লাউ এর উপকারিতা

জন্ডিস:

মুলা রক্ত পরিশোধন করে। শরীর থেকে বিষাক্ত বর্জ্য বের করতে সহায়তা করে। এটি জন্ডিসের চিকিৎসায় ভীষণ কার্যকরী। কারণ এটি রক্তে বিলিরুবিন নিয়ন্ত্রণ করে এবং শরীরে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়।

ক্যান্সার:

নিয়মিত মুলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এটি ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। এই সবিজটি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি উপাদানে সমৃদ্ধ। এই উপাদান শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। যা বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার চিকিৎসায় কার্যকরী। বিশেষ করে কোলন, কিডনি, ক্ষুদ্রান্ত্র, পেট এবং মুখের ক্যান্সারে খুবই কাজ দেয়।

কিডনির জন্য মুলার উপকারিতা :

মুলা কিডনির স্বাস্থ্য ভালো করতে সাহায্য করে। কারণ এই সবিজ মূত্রবর্ধক প্রাকৃতিক উপাদানে সমৃদ্ধ। এছাড়া এটি রক্তে বিষাক্ত পদার্থের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

আরো পড়ুন: কুলেখাড়া পাতার উপকারিতা

ওজন কমায়:

এই সবজিটি খেলে ওজন খুব একটা বাড়ার সম্ভাবনা নেই। তাই ওজন কমাতে চাইলে মুলা খাওয়া শুরু করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *