পুদিনা পাতার উপকারিতা – জানা জরুরি

পুদিনা পাতার উপকারিতা: গ্রীস্মকালে পুদিনা পাতা বাজারে খুব দেখা যায়। খাবার যেমনি সুস্বাদু করে তুলে, তেমনি আবার এর অনেক ঔষধি গুণও রয়েছে। আদি-অনাদিকাল থেকেই এর গুণ নিয়ে চর্চা হয়েছে এবং বইয়ে এর বিষয়ে লেখাও আছে।

পুদিনা পাতার উপকারিতা:

শ্বাসের কষ্টে উপকারী

শ্বাস কষ্ট রোগীদের জন্য পুদিনা পাতা এক আশীর্বাদের মতই বলা চলে। পুদিনা পাতা ঠান্ডা হয়, তাই শ্বাস প্রণালী পরিষ্কার করে। তবে মনে রাখবেন অত্যাধিক মাত্রায় পুদিনা পাতা খাবেন না।

সর্দি-কাশির থেকে রেহাই দেয়

ঠান্ডা লেগেছে, শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে, নাক বন্ধ? পুদিনা ব্যবহার করুন। তাই তো আপনার সকল ভেপো-রাব পুদিনার ফ্লেভারে আসে। পুদিনা পাতা ঠান্ডা হয়, তাই শ্বাস প্রণালী পরিষ্কার করে।

 মাথা ব্যথার উপচার

পুদিনা পাতার শীতলতা মাথা ব্যথা চটকরে ভালো করে দেই। ‘হিলিং ফুডস’ বইয়ের মতে পুদিনা পাতা মাথা ব্যথায় উপকার দেয়। যেকোনো পুদিনা বেস তেল মাথায় লাগালে অনেকটা আরাম পাওয়া যায়।

মুখের স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো

মুখের দুর্গন্ধ? মুখে সেই গন্ধ নিয়ে তো কোথাও কোনো মিটিং বা সাক্ষাৎকারে দেখা করতে পারবেন না। তাই পুদিনা পাতা বা এই পাতার স্বাদের কোনো চিউইং গাম চীবলে আপনার মুখের দুর্গন্ধ হ্রাস পায়ে। সাথেই এই মুখের দাগও পরিষ্কার করে দন্ত স্বাস্থ্য ভালো করে দেয়।

আরো পড়ুন: শাহী দানার উপকারিতা

এছাড়াও পুদিনা পাতার অনেক গুণ, যেমন ওজন কম করা, ত্বকের জন্য ভালো, উত্তম এন্টিসেপটিক. তাই এবার চাটনি খান বা পুদিনা পাতার স্মুদি, খাবারে পুদিনা পাতা নিশ্চই যোগ করুন। তথ্যসূত্র এনডিটিভি বাংলা।

পুদিনার আরো কিছু উপকারিতা:

  • গরমে ত্বকের জ্বালাপোড়া ও ফুসকুরি সমস্যায় কয়েকটি পুদিনার পাতা চটকে গোসলের জলতে মিশিয়ে স্নান করলে ভালো কাজ হয়।
  • মুখের দুর্গন্ধ দুর করতে পুদিনা পাতা জলের সাথে মিশিয়ে কুলি করুন।উপকার পাবেন।
  • পুদিনা পাতা হজম শক্তি বাড়ায়,মুখের অরুচি ও গ্যাসের সমস্যা দুর করে, কর্মক্ষমতা বৃদ্বি করে ও শরীর ঠান্ডা রাখে।
  • পুদিনা পাতার চা শরীরের ব্যাথা দুর করতে খুবই উপকারি।
  • মাইগ্রেনের ব্যাথা দুর করতে নাকের কাছে টাটকা পুদিনা পাতা ধরুন।এর গন্ধ মাথাব্যাথা সারাতে খুবই উপকারি।
  • কোন ব্যাক্তি হঠাত করে অগ্গান হয়ে গেলে তার নাকের কাছে পুদিনা পাতা ধরুন।সেন্স ফিরে আসবে।
  • অনবরত হেচকি উঠলে পুদিনা পাতার সাথে গোলমরিচ পিষে ছেকে নিয়ে রসটুকু পান করুন।কিছুক্ষনের মধ্যেই হেচকি বন্ধ হয়ে যাবে।
  • গোলাপ, পুদিনা, আমলা, বাঁধাকপি ও শশার নির্যাস একসঙ্গে মিশিয়ে টোনার তৈরি করে মুখে লাগালে তা ত্বককে মসৃণ করে তোলে।
  • পুদিনাপাতা পুড়িয়ে ছাই দিয়ে মাজন বানিয়ে দাত মাজলে মাড়ি থাকবে সুস্থ, দাত হবে শক্ত ও মজবুত।
  • দীর্ঘদিন রোগে ভুগলে বা কোষ্ঠ্যকাঠিন্য থাকলে অনেক সময় অরুচি হয়।এক্ষেত্রে পুদিনা পাতার রস ২ চা চামচ,কাগজি লেবুর রস ৮-১০ ফোটা,লবণ হালকা গরম জলতে মিশিয়ে সকাল বিকাল ২ বেলা খান।এভাবে ৪-৫ দিন খেলে অরুচি দুর হয়ে যাবে।

আরো পড়ুন: থানকুনি পাতার উপকারিতা

  • তাত্ক্ষনিকভাবে ক্লান্তি দুর করতে পুদিনা পাতার রস ও লেবুর রস মিশিয়ে পান করুন। ক্লান্তি নিমিষেই দুর হয়ে যাবে।
  • কফ দুর করতে পুদিনা পাতার রস,তুলসী পাতার রস,আদার রস ও মধু একসাথে মিশিয়ে খান। পুরোনো কফ দুর করতেও এই মিশ্রণ অতুলনীয়।
  • সুস্থ হার্টের জন্য পুদিনা পাতা অনেক উপকারী। এটি রক্তে কলেস্টরেল জমতে বাধা প্রদান করে। ফলে হার্ট থাকে সুস্থ।
  • যেকোনো কারনে পেটে গ্যাস জমে গেলে পুদিনা পাতা কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। পুদিনার রস ২ চা চামচ, সামান্য লবন, কাগজী লেবুর রস ৮/১০ ফোঁটা, হালকা গরম জলর সাথে মিশিয়ে সারাদিন ২-৩ বার খেলে পেটে গ্যাস ভাব কমে আসে।
  • পুদিনা পাতার রস উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত পুদিনা পাতার রস খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে থাকে।
  • মেয়েদের অনিয়মিত পিরিয়ডের যন্ত্রণা থেকে সেরে ওঠার জন্য পুদিনা পাতা বেশ উপকারী।
  • যাদের হজমশক্তি কম তারা পুদিনার শরবত ও চাটনি খেলে উপকার পাবেন।
  • পাতলা পায়খানা হলে পুদিনাপাতা বেশ উপকারী।
  • হঠাত্‍ সানস্ট্রোক করলে পুদিনার শরবত খেলে উপকার পাবেন।
  • পুদিনাপাতার সালাদ খেলে পেটে গ্যাস হয় না হজম হয়।
  • পুদিনা মেয়েদের রক্তশূন্যতা পূরণ করে।
  • মায়ের বুকে দুধ বাড়ে।
  • মাইগ্রেন বা আধকপালে মাথা ধরায় পুদিনাপাতা বেটে মাথায় লাগালে মাথাব্যথা ভালো হয়।
  • যাদের বুক ধড়ফড় করে তারা পুদিনাপাতা খেলে উপকার হবে। সূত্র:ডি.আই.ই

আরো পড়ুন: কারিপাতার উপকারিতা

Photo Credit: Pixabay

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *