ড্রাগন ফলের উপকারিতা

ড্রাগন ফলের উপকারিতা: ড্রাগন বিদেশি ফল হলেও ড্রাগন ফলের সতেজ করা স্বাদ ও পুষ্টিগুণের জন্য বাংলাদেশেও এখন এই ফল চাষ হচ্ছে। আর পুষ্টিগুণ কমলা বা গাজরের চাইতে বেশি। ড্রাগনের রয়েছে অবিশ্বাস্য স্বাস্থ্য উপকারিতা।

ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ:

প্রতি ১০০ গ্রাম ড্রাগন ফল- 

২১ মি.গ্রা. ভিটামিন সি

০.০৪ মি.গ্রা. ভিটামিন বি ১

০.০৫ মি.গ্রা. ভিটামিন বি ২

০.০১৬ মি.গ্রা ভিটামিন বি ৩

২০.০৫ মি.গ্রা. ভিটামিন সি

১.৯ মি.গ্রা. আয়রন

৮.৫ মি.গ্রা ক্যালসিয়াম

২২.৫ মি.গ্রা ফসফরাস

ড্রাগন ফলের উপকারিতা:

ওজন কমায়:

ড্রাগন ফলে অত্যন্ত কম পরিমাণে কোলেস্টেরল ও ক্যালোরি থাকে। তাই যারা ওজন কমাতে চান ড্রাগন ফল খেতে পারেন।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে:

বেশিরভাগ ফলের মতোই ড্রাগন ফলেও প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে ফলে এটা আমাদের রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে।

ত্বকের পক্ষে উপকারী:

ত্বকের বিভিন্ন সাধারণ সমস্যা দূর করতে দক্ষিণ- পশ্চিম এশিয়ার বহু পরিবারে এই ফল ঘরোয়া টোটকা হিসাবে ব্যবহার করা হয়। এই ফলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা আমদের ত্বকের পক্ষে অত্যন্ত উপকারী।

আরো পড়ুন: আমলকির উপকারিতা

সুস্থ হৃদপিণ্ড:

খারাপ কোলেস্ট্রোরল কমানোর মাধ্যমে হৃদযন্ত্র ভাল রাখে ড্রাগন। ভাল কোলেস্ট্রেরলও বাড়ায় এ ফল। ২০১০ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে ড্রাগন খেলে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে।

ডায়াবেটিস:

বেশি পরিমাণে আঁশ থাকায় ড্রাগন খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ স্থিতিশীল থাকে। গবেষকরা বলছেন, খাদ্য তালিকায় নিয়মিত ড্রাগন থাকলে ডায়াবেটিস সংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলো প্রতিরোধ করা সম্ভব।

রোগ প্রতিরোধে:

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির সব উপাদানই রয়েছে ড্রাগনে।

আরো পড়ুন: কমলার উপকারিতা

Photo Credit: Pixabay     

সূত্র :অনলাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *