টক দই এর উপকারিতা

টক দই এর উপকারিতা: টক দইয়ে প্রচুর পুষ্টিগুণ রয়েছে।ডাক্তার বা পুষ্টিবিদরা সবসময় টক দই খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।টক দই খাওয়ার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন।

টক দই এর উপকারিতা:

১. এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ঠাণ্ডা লাগা, সর্দি ও জ্বর না হওয়ার জন্য এটি ভালো কাজ করে।

২. টক দইয়ের উপকারী ব্যাকটেরিয়া ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে এবং শরীরের উপকারী ব্যাকটেরিয়াকে বাড়িয়ে হজম শক্তি বাড়ায় বা ঠিক রাখে।

আরো পড়ুন: নারিকেলের উপকারিতা

৩. ল্যাকটিক অ্যাসিড থাকার কারণে এটি কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া ও কোলন ক্যান্সার এর রোগীদের জন্য উপকারী।

৪. দইয়ের ব্যাকটেরিয়া হজমে সহায়ক| তাই এটি পাকস্থলী বা অন্ত্রর ও জ্বালাপোড়া কমাতে বা হজমের সমস্যা কমাতে সাহায্য করে|

৫. এতে প্রচুর ক্যালসিয়াম, রাইবোফ্লাভিন, ভিটামিন বি 6, বি  ভিটামিন বি 12 থাকার কারণে এটি খুব দরকারী একটি খাবার|

৬. এতে প্রচুর ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি  থাকার কারণে হাড় ও দাঁতের গঠনে ও মজবুত করতে সাহায্য করে।

৭. তাই অস্টিওপোরোসিস, বাত এর রোগী রা নিয়মিত টক দই খেলে উপকার পান।

৯. এর আমিষ দুধের চেয়ে সহজে হজম হয়, এটি দুধের চেয়ে অনেক কম সময়ে হজম হয়| তাই যাদের দুধের হজমে সমস্যা তারা দুধের পরিবর্তে এটি খেতে পারেন।

১০. টক দই রক্ত শোধন করে।

আরো পড়ুন: অশ্বগন্ধার উপকারিতা

১১. উচ্চ রক্ত চাপের রোগীরা নিয়মিত টক দই খেলে রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন।

১২. ডায়বেটিস, হার্টের অসুখ এর রোগীরা নিয়মিত টক দই খেলে এসব অসুখ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন।

১৩. নিয়মিত টক দই খেলে তা অন্য খাবার থেকে পুষ্টি নিয়ে শরীরকে সরবরাহ করে|

১৫. এর পুষ্টি উপাদানগুলো হজমের সময় তাড়াতাড়ি শরীরে শোষিত হয়ে দ্রুত শরীরকে শক্তি দেয়।

১৬. এটা ব্রেইনকে টাইরোসিন সরবরাহ করে, যা মানসিক প্রশান্তি দেয় এবং ক্লান্তি কমায়।

১৭. প্রচুর ক্যালসিয়াম থাকার কারণে এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে।

১৮. টক দই শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে| তাই গ্রীষ্মকালে টক দই খেলে ভালো।

১৯. টক দই শরীরে টক্সিন জমতে বাধা দেয়। তাই অন্ত্রনালী পরিষ্কার রেখে শরীরকে সুস্থ রাখে ও বুড়িয়ে যাওয়া রোধ বা অকালবার্ধক্য করে। শরীরে টক্সিন কমার কারণে ত্বকের সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পায়।

২০. পেট খারাপের উপশম। পেট খারাপ মানে সেটা হতে পারে ডায়রিয়া, আমাশয়, কোষ্ঠকাঠিন্য, ফুড পয়জনিং, ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ইত্যাদি।

আরো পড়ুন: কারিপাতার উপকারিতা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *