চিনা বাদামের উপকারিতা – জানা জরুরি

চিনা বাদামের উপকারিতা: চিনা বাদাম আমাদের দেশে অনেক জনপ্রিয় একটি ফল। আমাদের দেশে সাধারণত এখন সবধরণের বাদাম পাওয়া যায়। বাদাম আমাদের দেশে অত্যন্ত পরিচিত একটি ফল এবং স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। কিন্তু এই বাদাম শরীরের জন্য কতটা উপকারী তা খুব কম মানুষেই হয়ত জানেন।

বাদামে রয়েছে প্রোটিন, ফাইবার, ভিটামিনের মতো আরো অনেক পুষ্টিগুণ যা বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে সহায়তা করে। তাই প্রতিদিন লবণ ছাড়া বাদাম খাবার অভ্যাস গড়ে তুললে আপনি থাকবেন সুস্থ ও ফিট।

তাই আজকে আমরা জানবো চীনা বাদামের বিভিন্ন ধরনের উপাদান ও গুণাগুল সম্পর্কে-

চীনা বাদামের পুষ্টি উপাদান:

চিনাবাদাম একটি উচ্চ পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে

  • প্রোটিন
  • সোডিয়াম
  • আয়রন
  • ক্যালসিয়াম
  • পটাশিয়াম
  • ম্যাগনেসিয়াম
  • ফাইবার
  • ভিটামিন-এ
  • ভিটামিন-বি
  • ভিটামিন-সি সহ নানায়াম মাইক্রো পুষ্টি উপাদান।

আরো পড়ুন: পেস্তা বাদামের উপকারিতা 

প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁচা বাদামের রয়েছে ৫৬৭ কিলোক্যালরি। এছাড়া রয়েছে ৫০ গ্রাম ফ্যাট যার মধ্যে ৭.১ গ্রাম সিচুয়েটেড অ্যাট, রয়েছে ২২ গ্রাম সোডিয়াম। কার্বোহাইড্রেড রয়েছে ১৬ গ্রাম। উচ্চ মাত্রায় প্রোটিন ২৬ রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে ভিটামিন ক্যালসিয়াম আয়রন ও পটাশিয়াম।

চিনা বাদামের উপকারিতা :

খারাপ কোলেস্টেরল কমায়:

চীনা বাদামে রয়েছে মনো আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট। এছাড়াও ফ্যাটি এসিড রয়েছে যা খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে থাকে। চিনা বাদামের তেলের রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভালো কোলেস্টেরল।

উপকারী চর্বির উৎস:

চীনা বাদামে রয়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ ফ্যাট। যার মধ্যে মনো আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে। এই চর্বিগুলো মানুষের শরীরের জন্য উপকারী।

উচ্চমাত্রার আমিষের উৎস:

বাদাম একটি উচ্চমাত্রার আমিষের উৎস। ১০০ গ্রাম বাদামে ২৬ গ্রাম প্রোটিন রয়েছে । আপনারা নিশ্চয় জানেন আমি শরীরের মাংসপেশি গঠনে ভূমিকা রাখে।একজন পূর্ণবয়স্ক নারী প্রতিদিন ৪৬ গ্রাম এবং পুরুষের ৫৬ গ্রাম প্রোটিন প্রয়োজন। এছাড়াও ১৫০০ মিলিগ্রাম থেকে সর্বোচ্চ ২৩০০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম গ্রহণ করা উচিত।

পাকস্থলী ক্যান্সার রোধ করে:

বাদামে বিদ্যমান পলিফেনোলিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাকস্থলী ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:

পুষ্টির অভাবজনিত রোগব্যাধিকে নিয়ন্ত্রণ করে। তাছাড়াও কাশি, সর্দি জ্বর মাথা ব্যাথা ও শারীরিক দুর্বলতা কমাতে ভূমিকা রাখে।

আরো পড়ুন: জেনে নিন বাদাম খাওয়ার সঠিক নিয়ম

ত্বক উজ্জ্বল করে;

বাদামে রয়েছে উচ্চমাত্রার ফাইবার এবং চর্বি যা নিয়মিত খেলে শরীরের ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে। শরীরে জমে থাকা বর্জ্য পদার্থ অপসারণ করে যার কারণে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

চুলের পুষ্টি জোগায়:

বাদামে বিদ্যমান ভিটামিন ই চুলকে উজ্জ্বল করে এবং মোটা করে।

মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:

বাদামে বিদ্যমান বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান বিশেষ করে ওমেগা থ্রি ও সিক্স মস্তিষ্ক কে শক্তিশালী হতে সহায়তা করে।

 শরীরের ওজন কমায়:

বাদামে রয়েছে উচ্চমাত্রার ফ্যাট ও ক্যালরি। বাদাম খেলে পেটে খাদ্য চাহিদা কমে যায়। যার ফলে অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণে অনীহা আসে ফলে খদ্য কম গ্রহন করে এবং ওজন কমে থাকে। তাছাড়াও উপকারী চর্বি থাকায় তা শরীরে মেদ হিসাবে জমতে পারে না।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়:

বাদামে রয়েছে প্রায় ৫০% উপকারী তেল বা চর্বি। এছাড়াও রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম, নায়াসিন, কপার, অলীক এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে।

হাড়ের ক্ষয় রোগ বন্ধ করে:

আরো পড়ুন: চেরি ফলের উপকারিতা

প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় বাদাম থাকলে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম হাড়ের ক্ষয় রোধ করে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ পরে:

বাদামে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে যা উচ্চরক্তচাপ কমাতে সহায়তা করে।

গলস্টোন থেকে রক্ষা করে:

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৫ থেকে ২৫ শতাংশ পূর্ণবয়স্ক মানুষের গলস্টোন হয়ে থাকে। এক স্টাডিতে দেখা গেছে, বাদাম গলস্টোন প্রতিরোধ করে।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে:

বাদামে প্রচুর পরিমানে ফাইবার থাকে ফলে খাদ্য তালিকা বাদাম থাকলে শরীরের হজম শক্তি বৃদ্ধি করে।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করে:

বাদামে ম্যাগনেসিয়াম রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে রাখতে। বাদামের ভালো চর্বি শরীরে মেদ জমতে বাধা দেয় যার ফলে অতিরিক্ত শর্করা শরীরে জমতে পারে না। নিয়মিত বাদাম খেলে টাইপ টু ডায়াবেটিস ২৫ থেকে ৩৮ শতাংশ কমে যায়।

Photo Credit: pixabay.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *