চিকেন রোস্ট রেসিপি – জানা জরুরি

চিকেন রোস্ট রেসিপি: চিকেন রোস্ট নিয়ে আমি এত এত এক্সপেরিমেন্ট করেছি যে তাতেই আমার ৭/৮ টা রেসিপি হয়ে যাবে. আছেও.কিন্তু আমার এই রেসিপিটা এখন পর্যন্ত আমার মতে বেস্ট. বলতে গেলে পুরোই বিয়ে বাড়ির সেই রোস্টের কথা আপনাকে মনে করিতে দিবে.চিকেন রোস্ট রেসিপিচিকেন রোস্ট নিয়ে আমি এত এত এক্সপেরিমেন্ট করেছি যে তাতেই আমার ৭/৮ টা রেসিপি হয়ে যাবে. আছেও.কিন্তু আমার এই রেসিপিটা এখন পর্যন্ত আমার মতে বেস্ট. বলতে গেলে পুরোই বিয়ে বাড়ির সেই রোস্টের কথা আপনাকে মনে করিতে দিবে.

চিকেন রোস্ট রেসিপি:

১. বেরেস্তা এই রেসিপিতে খুব ইম্পোরটেন্ট একটা ভুমিকা পালন করে.তাই আগেই বেরেস্তা করে রাখা ভাল.

বেরেস্তা টা অবশ্যই সুন্দর সোনালী হতে হবে ,কালচে নয়. কালচে বা বেশি গাঢ় হয়ে গেলে রোস্টের রংটাও কালচে হবে.

এই ব্যাপারে একটা টিপ্স দেই. বেরেস্তা ভাজার সময় কিন্তু নাড়াচাড়ার মধ্যে রাখতে হয়,নয়তো সহজেই কিছু বেরেস্তা গাঢ় আর কিছু হালকা রয়ে যায়.

তেল থেকে উঠানোর পর বেরেস্তার রং কিন্তু আরেকটু ডার্ক হয়ে যাবে ,তাই হালকা বাদামি হয়ে যাবার সাথে সাথে তুলে ফেলতে হবে.

সময় পেলে বেরেস্তার উপর একটা ভিডিও করে দেখাবো ইন শা আল্লাহ.

২. আমি বেরেস্তা ছাড়াও এক্তু বাটা পিয়াজ ব্যাবহার করেছি.

৩. সবচেয়ে গুরুত্তপুর্ন একটা ইনগ্রিডিয়েন্ট হলো ক্রিম. হেভি ক্রিম না. আমি ব্যাবহার করেছি টেবিল ক্রিম. যারা বাইরে থাকেন ,তারা নেসলে’র টেবিল ক্রিম টা ব্যাবহার করতে পারেন. এই টেবিল ক্রিম টা ক্যানে আসে. দেশের ডানো ক্রিমের মত.

আচ্ছা এখন ক্রিম বাসায় নেই,কিন্তু খুব খেতে ইচ্ছা করছে এই ক্ষেত্রে শেষে ক্রিমের পরিবর্তে ১/৪ কাপ গুড়ো দুধ ছড়িয়ে দিয়েন. এটাই মাওয়ার কাজ করবে.

৪. এখন যেটা বলবো তার জন্য অনেকে নাক কুচকাতে পারেন. তাও বলি. আমি কিন্তু রং আনার জন্য অল্প হলুদ আর মরিচ মশলা কশানোর সময় ব্যাবহার করেছি. মুরগি তে মাখাই নাই কিন্তু. কশানর সময়. পরে ক্রিম দেয়ার পর এত সুন্দর রং হয়েছে. কিন্তু হলুদ বা মরিচের ফ্লেভার বোঝা যায় নি.

রেসিপিতে আমি এই হলুদ,মরিচের কথা উল্লেখ করবো না. কেউ চাইলে ব্যাবহার করতে পারেন. ১/২ চামচ (হাফ চামচ) হলুদ আর ১ চামচ মরিচের গুড়া ব্যাবহার করেছি.

তবে কেউ শেষে ক্রিম ব্যাবহার না করলে হলুদ ,মরিচের গুড়া ব্যাবহার করবেন না.

আরো পড়ুন: ওটস রেসিপি

চিকেন রোস্ট উপকরণ :

২ টা ছোট মুরগি, প্রত্যেকটা মুরগি ৪ পিস করা.

১ টেবিল চামচ আদার রস

২ টেবিল চামচ আদা বাটা

১ টেবিল চামচ রশুন বাটা

১/৩ ভাগ কাপ পিয়াজ বাটা

১ কাপ বেরেস্তা

৫-৬ টা আস্ত এলাচ

২ টা ছোট দারচিনি স্টিক

২ টা তেজপাতা

১/২ কাপ টক দই,অল্প পানি দিয়ে ফেটিয়ে নেয়া

৭/৮ টা আস্ত কাচামরিচ

লবন

১ টেবিল চামচ – ১ ১/২ টেবিল চামচ চিনি, স্বাদ অনুযায়ি

তেল

২ টেবিল চামচ ঘি

৪ টেবিল চামচ ক্যানের ক্রিম,যেমন Dano

আলু বোখারা

১ চা চামচ কিসমিস বাটা (ইছছা)

১/২ টেবিল চামচ পোস্তদানা বাটা (ইছছা)

কেওড়া জল

২ চা চামচ বিশেষ মশলা

বিশেষ মশলা :

 এলাচ গুড়া ১/২ চা চামচ

 দারচিনি গুড়া ১/২ চা চামচ

 লং এর গুড়া ১/২ চা চামচ

 সাদা গোল মরিচ গুড়া ১/২ চা চামচ

 জয়িত্রি -জায়ফল গুড়া ১/২ চা চামচ

১ টা বড় এলাচ/কালো এলাচ গুড়া

সব একসাথে একটা বাটিতে মিলিয়ে নিন.

প্রনালী :

১. মুরগি ৮ পিস হবে. মুরগি গুলোতে আদার রস মাখিয়ে তেলে ভাল করে ভেজে নিন.

২. ওই তেলেই এলাচ,দারচিনি,তেজপাতা দিয়ে ভাজুন.পিয়াজ বাটা,আদা বাটা,রশুন বাটা দিয়ে ভাজুন. অল্প পানি যোগ করে লবন দিয়ে কশাতে থাকুন. মুরগি গুলো দিন.

৩. অল্প পানি দিয়ে কাটা চামচ দিয়ে দই হাল্কা স্মুদ করে ফেটে নিন. ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করবেন না,তাতে দই এর ক্রিমি ভাব থাকবে না.

অনেক সময় দই মশলা দিলে ছেড়ে ছেড়ে যায়,একটু ঘি ,চিনি মিশিয়ে দই টা ফেটানো হলে এমন হবে না. দই.দিন.বেরেস্তা দিন. কিসমিস বাটা ,পোস্তদানা বাটা,আলু বোখারা,কাচামরিচ দিন.

৪. ঢেকে দিয়ে আরেকটু সময় রান্না করুন. ক্রিম দিন. চিনি দিন.আর অল্প একটু সময় রান্না করুন. ঘন ঘন নাড়ুন, না হলে নিচে পোড়া লাগবে.

বিশেষ মশলা দিয়ে দিন.কেওড়া জল দিয়ে উপরে ঘি ছড়িয়ে দিন. ঢেকে দিয়ে চুলা বন্ধ করে চুলা উপরেও রেখে দিন.গরম চুলা দমের কাজ করবে.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *