কলার উপকারিতা

কলার উপকারিতা: কলা হজমে সহায়তা করে এবং পেট ফাঁপা সমস্যা সমাধান করে। এছাড়াও কলা পাকস্থলীতে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করতে সহায়তা করে। উচ্চমাত্রার পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম বিদ্যমান থাকায় এটি একটি পুষ্টিকর খাবার। এর নানা স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

কলার পুষ্টিগুণ:

প্রতি ১০০ গ্রাম পরিমাণ কলার পুষ্টিগুণ

পানি ৭০.১%

আমিষ ১.২%

ফ্যাট ০.৩%

খনিজ লবণ ০.৮%

আঁশ ০.৪%

শর্করা ৭.২%

ক্যালসিয়াম৮৫মি.গ্রা

ফসফরাস ৫০মি.গ্রা

আয়রন০.৬মি.গ্রা

ভিটামিন-সি

অল্প ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স ৮মি.গ্রা

পাকা কলার উপকারিতা:

পাকা কলার উপকারিতা,পাকা কলা,কলা
https://janajoruri.com/

ক্যানসার রোধ করে:

পাকা কলার সবচেয়ে বড় একটি গুণ হলো এটি ক্যানসার রোধ করতে পারে। কলা বেশি পেকে গেলে তার উপর যে কালো দাগ পড়ে, তা টিউমার নেকরোসিস ফ্যাক্টর নামের উপাদান তৈরি করে, যা শরীরের ক্যানসার সৃষ্টিকারী কোষ ধবংস করে।

কোষ নষ্ট হওয়া রোধ করে:

অতি পাকা কলায় প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে, যা শরীরের কোষ নষ্ট হওয়া রোধ করে। এতে রোগ হওয়ার ঝুঁকি কমে।

রক্তচাপ কমায়(পাকা কলার উপকারিতা):

বেশি পাকা কলায় সোডিয়াম কম ও পটাশিয়াম বেশি থাকে। তাই নিয়মিত অতি পাকা কলা খেলে রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকে, রক্তনালীতে থাকা ব্লক দূর করে। এতে স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ হয়।

বুক জ্বালা দূর করে:

কলা বেশি পেকে গেলে তা অ্যান্টাসিডের কাজ করে। বাদামী বা কালোদাগ সহ বেশি পাকা কলা খেলে বুক জ্বালা কমে।

রক্ত স্বল্পতা প্রতিরোধ করে:

অতি পাকা কলায় আয়রনের পরিমাণ বেশি থাকে, তাই অ্যানিমিয়া বা রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করে এটি।

শক্তি বাড়ায়:

অতিরিক্ত পাকা কলায় প্রচুর কার্বোহাইড্রেট ও সুগার থাকে, যা শরীরে শক্তি যোগায়। দেড় ঘন্টা ব্যায়াম করার পর দুটি অতি পাকা কলা খেলে শক্তি ফিরে পাবেন আপনি।

হৃদরোগ প্রতিরোধ করে:

কলায় পটাশিয়াম বেশি সোডিয়াম কম থাকে বলে বিশেষ করে অতি পাকা কলা কোলেস্টেরল মাত্রা ঠিক রাখে। কলায় থাকা আঁশ হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। আর কলায় থাকা কপার ও আয়রন রক্ত ও হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়ায়।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে:

হজমের সমস্যা দূর করে পাকা কলা। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে এটি খুবই কার্যকর।

হতাশা দূর করে:

অতি পাকা কলায় বেশি পরিমাণে ট্রিপটোফান থাকে, যা খাওয়ার পর সেরোটোনিনে পরিণত হয়। এই উপাদান নার্ভাস সিস্টেমকে ঠান্ডা রাখে, হতাশা দূর করে মনে সতেজ ভাব নিয়ে আসে।

কাঁচা কলার উপকারিতা:

কাঁচা কলার উপকারিতা,কাঁচা কলা,কলা
https://janajoruri.com/

2.উচ্চ মাত্রায় স্টার্চ ও খাদ্যআঁশ থাকায় কাঁচা কলা হজমে সহায়তা করে এবং পেটের সমস্যায় খুব ভালো কাজ করে। এটা ব্যাকটেরিয়ার কারণে হওয়া সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে।

3.কাঁচা কলায় আছে উচ্চ মাত্রার পটাশিয়াম যা রক্তনালী ও ধমনীর চাপ কমিয়ে উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। ফলে প্লাক জমে ধমনী সরু হয়ে যাওয়া, হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

4.কাঁচা কলা ক্ষুধার অনুভূতি কমায় ও পেট ভরা রাখে। এটি খাবারের চাহিদা কমিয়ে প্রাকৃতিকভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

5.কাঁচা কলার ভিটামিন বি-সিক্স রক্তের গ্লুকোজ বিশেষ করে টাইপ-টু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এটা রক্তে ইন্সুলিন নিঃসরণে সহায়তা করে এবং উচ্চ আঁশ-জাতীয় হওয়ায় রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে।

6.কাঁচা কলায় রয়েছে নানান খনিজ উপাদান, যা ডায়রিয়া এবং এই রোগের লক্ষণসহ মাথাব্যথা ও দুর্বলভাব দূর করে।(কাঁচা কলার উপকারিতা)

7.কাঁচা কলা শরীরের ইলেক্ট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং কিডনি বা বৃক্কের কাজে সহায়তা করে। প্রতিদিন কাঁচা কলা খেলে বৃক্কের সমস্যা দূর হয়, বিশেষ করে ‘কিডনি ক্যান্সার’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *