এপ্রিকট ফলের উপকারিতা

এপ্রিকট ফলের উপকারিতা

আসসালামু আলাইকুম, আজকে আমরা জানবো এপ্রিকট ফলের উপকারিতা নিয়ে।

এপ্রিকট (Apricot), বাংলায় একে খুবানি বলা হয়। হলদে-কমলা রংয়ের এই ফলটি দেখতে যেমন সুন্দর তেমন উচ্চ পুষ্টিমান সম্পন্ন।  এটি প্রধানত চীনে উৎপন্ন হত।

এপ্রিকট ফলের পুষ্টিগুণ:

এপ্রিকটে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, প্রোটিন ও উপকারী ফ্যাট ভিটামিন-বি২ভিটামিন-বি৩ভিটামিন-এ এবং ভিটামিন-সি রয়েছে।

জেনে নেয়া যাক, এপ্রিকট ফলের উপকারিতা:

দৃষ্টি ক্ষমতা বাড়ায়:

এপ্রিকটে বিদ্যমান করোটিনয়েডস ও জেন্থফিল বয়সের সাথে সম্পর্কিত চক্ষু রোগ প্রতিরোধে কাজ করে। আবার এর ভিটামিন এ চোখের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে:

নিয়মিত এপ্রিকট আপনাকে এহেন সমস্যা থেকে পরিত্রাণ দিবে। এর উচ্চ ফাইবার আপনার হজমে সহায়তা করবে। সেই সাথে কোষ্ঠকাঠিন্য ও পেটের ফাঁপা ভাব দূর করবে।

আরো পড়ুন: কদবেলের উপকারিতা

হৃৎপিণ্ডের সুস্থতা:

অ্যাপ্রিকট শরীরের ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল কমায় ও হৃৎপিণ্ডকে সুরক্ষিত রাখে। একই সাথে, এটা শরীরে উপকারি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়।

হাড়ের গঠনে সাহায্য করে:

এপ্রিকট ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। হাড়ে ক্যালসিয়াম সঠিক শোষণে  সহায়তা করে পটাসিয়াম। এপ্রিকটে পাওয়া যাবে এই পুষ্টি উপাদানটিও। এটি আপনার হাড়ের কাঠামো শক্তিশালী করবে এবং হাড় ক্ষয় রোধ করবে।

গর্ভকালীন পুষ্টিচাহিদা পূরণে:

গর্ভকালীন সময়ে মা ও শিশুর সুস্থ্যতার জন্য বাড়ে যায় পুষ্টিচাহিদা। তাই এ সময়ে প্রয়োজন পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহন।এপ্রিকট একটি উচ্চ পুষ্টিসম্পন্ন ফল।

ত্বকের পরিচর্যায়:

এপ্রিকটে আছে ভিটামিন ই ও সি,যা সুস্থ ত্বকের জন্য প্রয়োজনীয়।

আরো পড়ুন: গুড়ের উপকারিতা

Photo by Maša Žekš on Unsplash

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *