আসল ঘি চেনার উপায়

আসল ঘি চেনার উপায়: ভেজাল ঘি খ‌রিদ কর‌লে পয়সা নষ্টের পাশাপাশি হতে পারে আপনার স্বাস্থ্য সমস্যাও।এজন্যই কিছু সহজ পদ্ধতির কথা বলছি; যেগুলোর দ্বারা আপনি ঘরে বসেই পরীক্ষা করতে পারবেন ঘি খাঁটি নাকি ভেজাল।

আসল ঘি চেনার উপায়:

ঘরোয়া পদ্ধতি ভেজাল ঘি চেনার উপায়:

টিপস: হাতে কিছু ঘি নিয়ে মর্দন করুন। তারপর শুঁকে দেখুন।

কিছুক্ষণ পরই গন্ধ আসা বন্ধ হয় তবে বুঝবেন এতে ভেজাল মেশানো আছে। তবে এভাবে ঘিতে কি মেশানো আছে তা জানা যাবে না।

টিপস: হাতের তালুতে এক চামচ ঘি নিন। যদি নিজে নিজে গলতে শুরু করে তবে তা খাঁটি।

সাধারণত খাঁটি ঘি শরীরের তাপমাত্রায় গলতে থাকে।

আরো পড়ুন: ঘি এর উপকারিতা

টিপস:এক চামচ ঘি নিয়ে গরম করতে থাকুন। যদি দ্রুত গলে যায় এবং বাদামী বর্ণ ধারণ করে তবে তা খাঁটি।

কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই খাঁটি ঘি গলে যায়। যদি ভেজাল মেশানো থাকে তবে তা গলতে দীর্ঘ সময় নেয়।

ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা:

ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার মাধ্যমে ঘিতে মিশ্রিত উপাদানটি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

কোলটার ডাই শনাক্তকরণ:

এক চামচ ঘিয়ের মধ্যে ৫ মিলি. হাইড্রোক্লোরিক এসিড যোগ করুন।

যদি ঘি লাল হয় তবে বুঝবেন ঘিতে কোলটার ডাই মেশানো হয়েছে।

সিদ্ধ আলু শনাক্তকরণ পদ্ধতি ভেজাল ঘি চেনার উপায়:

এক চামচ ঘিতে ৪-৫ ড্রপ আয়োডিন যোগ করে ফেলুন।

যদি ঘিয়ের রং পরিবর্তিত হয়ে নীল হয়, তবে বোঝা যাবে ঘিতে সিদ্ধ আলু মেশানো হয়েছে।

ডালডা শনাক্তকরণ:

একটি বাটিতে এক চামচ ঘি, হাইড্রোক্লোরিক এসিড এবং সামান্য মেশান।

যদি ঘি হালকা লাল বা লালচে বাদামী হয় তবে বোঝা যাবে ঘিতে ডালডা মেশানো হয়েছে।

তিলের তেল শনাক্তকরণ পদ্ধতি ভেজাল ঘি চেনার উপায়:

১০০ মিলি. ঘি নিন। তাতে ফারফিউরাল এবং হাইড্রোক্লোরিক এসিড মেশান।

এরপর অ্যালকোহল যোগ করুন। ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। যদি লাল রং আসে তবে বুঝবেন তিলের তেল মেশানো হয়েছে।

ভেষজ ও আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে, ঘিয়ের অনেক উপকারীতার কথা বলা হয়। তবে তা অবশ্যই খাঁটি ঘি হতে হবে।

এই সকল সহজ পদ্ধতির মাধ্যমে সহজেই খাঁটি ও ভেজাল ঘি শনাক্ত করতে পারবেন।

 

এই ছিলো আসল ঘি চেনার উপায় ভালো লাগলে ,অবশ্যই লাইক কমেন্ট শেয়ার করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *